মঙ্গলবার, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, দুপুর ২:২৪

শিরোনাম :
ভোলা-লক্ষ্মীপুর নৌরুটে লঞ্চ-ফেরি চলাচল ব্যাহত বরিশাল কোতয়ালি মডেল থানায় ওসি আনোয়ার হোসেনের যোগদান ফেসবুক লাইভে এসে ৪ জনকে চাকরিচ্যুত করলেন মেয়র সাদিক প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষকদের ভূমিকা অপরিসীম : পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বরিশালে যমুনা টিভির সাংবাদিকসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা শেবাচিমে চিকিৎসায় অবহেলায় মৃত্যুর অভিযোগে মেডিকেলে ভাঙচুর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ভিড়ে ওবায়দুল কাদেরসহ ভেঙে পড়ল মঞ্চ আবুধাবিতে লটারিতে ৯৮ কোটি টাকা জিতলেন প্রবাসী বাংলাদেশি বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরিশালে ছাত্রলীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন টিসিবির বাড়তি দামে পণ্য কিনতে এসে ভোগান্তি

বরিশালে মহা ধুমধামে প্রতিবন্ধী সৃষ্টি-তানজিলার বিয়ে

dynamic-sidebar

খবর বরিশাল ডেস্ক ॥ সানাইয়ের সুরে বিয়ের রঙিন সাজে সাজেন দুই কন্যা, যাবেন নতুন ঠিকানায়। জীবনের গুরুত্বপূর্ণ এ দিনটিতে পাশে থাকার কথা মা-বাবা, পরিবার-পরিজনের, কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে কেউ থাকার সুযোগ ছিল না। তবে বাবা-মা না থাকলেও পাশে ছিলেন আত্মার সম্পর্কের এক বিশাল পরিবার। শনিবার (২৯ অক্টোবর) দুপুরে বরিশাল নগরের রুপাতলীর সামাজিক প্রতিবন্ধী মেয়েদের প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রেদুই এতিম কন্যার এমন ব্যতিক্রমী বিয়ে হয়। যাদের বেড়ে ওঠা এ প্রতিষ্ঠানে।

 

এ দুই দম্পতির জাঁকজমকপূর্ণ বিয়ের আয়োজন করে বরিশাল জেলা প্রশাসন।অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম, বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার মো. আমিন উল আহসান, কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের কর কমিশনার তাসনিমা হোসেন লুনা, কর কমিশনার কাজী লতিফুর রহমান, বরিশালের জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার, পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন, ভোলার জেলা প্রশাসক মো. তৌফিক -ই-লাহী চৌধুরী ও পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহেদুর রহমান, জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আল মামুন তালুকুদার হোসেন, বরিশাল সদর উপজেলার চেয়ারম্যান সাইদুর রিন্টু, শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন, বিসিসির পরিচালক আলমগীর হোসেন আলো, সমাজসেবক মাহমুদুল হক খান মামুন, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের প্রবেশন অফিসার সাজ্জাদ পারভেজ প্রমুখ ।

 

 

গত তিন বছর আগে বিভিন্ন কারণে পরিবার ও সমাজ থেকে দূরে চলে আসা ১৯ বছরের তরুণী তানজিলা আক্তার এবং শ্রবণ ও বাক প্রতিবন্ধী সৃষ্টি আক্তার আশ্রয় নেয় বরিশালের সামাজিক প্রতিবন্ধী মেয়েদের প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে।জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের প্রবেশন অফিসার সাজ্জাদ পারভেজ বলেন, সামজিক প্রতিবন্ধী সেন্টারের নিবাসী তানজিলা আক্তারের বাড়ি শরীয়তপুরের ঘোষাইর হাট উপজেলার তুলাতলি এলাকায় আর সৃষ্টি আক্তারে বাড়ি বরিশাল সদর উপজেলার পলাশপুর এলাকায়। তিনবছর আগে সামাজিক প্রতিবন্ধী এই দুই মেয়ে আমাদের প্রতিবন্ধী মেয়েদের প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে আসেন। এরপর থেকে তাদের সেলাইসহ এখানে বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

 

 

আর সর্বশেষ আজ আনুষ্ঠানিক ও সামাজিকভাবে তাদের বিয়ে দেওয়া হলো।এ বিষয়ে বরিশালের জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার বলেন, সামাজিক প্রতিবন্ধী মেয়েদের প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের সবাই আমাদের মেয়ে। সেখানে থাকা আজ আমার দুই মেয়ের বিয়ে এতো জাঁকালোভাবে দিতে পেরেছি এটাই আনন্দের। আর এ উৎসবমুখর পরিবেশের পেছনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম স্যার সার্বিক সহায়তা করেছেন। তার সহযোগিতার মধ্য দিয়ে আমরা নব এই দম্পতিকে কর্মসংস্থানের জন্য দুটি অটোরিকশা দিয়েছি।রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা রহমাতুল মুনিম বলেন, এই কেন্দ্রের বাইরে সামাজিক প্রতিবন্ধী নামটা লেখা রয়েছে, এ জায়গাটাতে আমার থাকলেও আসলেই তারা সামাজিক প্রতিবন্ধী। সমাজ তাদের প্রতিবন্ধী করে রেখেছে, সমাজ তাদের গ্রহণ করতে চায় না।

 

 

এ জায়গাতে আমি এড্রেস করতে চাই, সমাজ যেন তাদের গ্রহণ করে নেয়। আমি যখন বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার ছিলাম, তখন এই মেয়েদের জন্য কিছু করতে চেয়েছি কিন্তু বেশি কিছু করতে পারিনি। এরপর এখান থেকে চলে গেলেও তাদের কথা আমার মনে ছিল। আজ এখানকার দুটি মেয়ের বিয়ে হয়েছে। আমি আশা করি সমাজে যারা প্রতিষ্ঠিত রয়েছেন, তারা এভাবে এখানকার মেয়েদের বিয়েতে আমার মতো সবাই এগিয়ে আসবেন।

 

 

এখানে শেষ নয়, এভাবে সামাজিক প্রতিবন্ধী মেয়েরা আসবে আর আমাদের সমাজের লোকদেরই তাদের রেসকিউ করতে হবে।এদিকে কথা না বলতে পারলেও হাত দিয়ে বিয়েতে খুশি হওয়ার কথা বুঝিয়েছেন সৃষ্টি আক্তার। আর তানজিলা বলেন, আমাদের দু বোনের জন্য দোয়া করবেন। আমি কথা বলতে পারছি কিন্তু আমার বোন কথা বলতে পারছে না, আবার আমার সঙ্গে যিনি সংসার করতে যাচ্ছেন তিনি কথা বলতে পারেন না, কিন্তু বাকপ্রতিবন্ধী আমার বোনের স্বামী কথা বলতে পারেন। আমরা দু-বোনই নিজ ইচ্ছায় এ বিয়েতে খুশি মনে রাজি হয়েছি। কারণ সবকিছুই তো আল্লাহ সৃষ্টি করেছেন, কথা বলতে না পারাটা দোষের কিছু নয়। মনের মিল থাকলে সবকিছু ঠিক থাকবে। আমাদের জন্য দোয়া করবেন।এদিকে দুই বরের বাবা-মা, স্বজনরা বিয়েতে এসেছেন, তারাও এ বিয়েতে বেশ খুশি হয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

আমাদের ফেসবুক পাতা


© All rights reserved © 2018 DailykhoborBarisal24.com

Desing & Developed BY EngineerBD.Net

shares