রবিবার, ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, দুপুর ১২:৪৫

শেবাচিম হাসপাতালে ফের ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ধর্মঘট : ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা সেবা

dynamic-sidebar

নিজস্ব প্রতিবেদক॥বরিশাল শের ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ৩ দফা দাবিতে ইন্টার্ন ডক্টর্স অ্যাসোসিয়েশনের ডাকা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির দ্বিতীয় দিন চলছে । রোববার (০১ নভেম্বর) সকালে হাসপাতালে গিয়ে কোনো ইন্টার্ন চিকিৎসককে কাজে দেখা যায়নি। রোগী ও রোগীর স্বজনরা জানান, শনিবার (৩১ অক্টোবর) দুপুরের পর থেকে কোনো ডাক্তারই তাদের খোঁজ খবর নেয়নি।

 

এমনকি কোনো চিকিৎসকের দেখাও তারা পাননি। এ অবস্থায় দুর্ভোগে পড়েছেন তারা। বিশেষ করে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা সাধারণত ২৪ ঘণ্টাই রোগীর পাশে থাকতো। কিন্তু কর্মবিরতির কারণে এখন আর তারা কেউ সেখানে নেই।এদিকে হাসপাতাল প্রশাসন বলছে, চিকিৎসক সংকটের মধ্যেও তারা রোগীদের সেবা নিশ্চিত করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। যদিও শেবাচিম হাসপাতালে বর্তমানে ২২৪টি পদের স্থলে মাত্র ৯১ জন চিকিৎসক রয়েছেন। কিন্তু এটি ৫শ শয্যার হাসপাতালের রোগীদের জন্য বরাদ্দ পদ ছিল। বর্তমানে হাজার শয্যার এ হাসপাতালে দেড়হাজারের মতো রোগী থাকলেও সেখানে পদের কোনো উন্নয়ন ঘটেনি। তারপরও শূন্যপদ পূরণে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

 

 

ইন্টার্নদের দাবিগুলো হলো- ডা. মাসুদ খানের করা মামলা প্রত্যাহার ও বিভিন্ন মাধ্যমে হয়রানি অনতিবিলম্বে বন্ধ করা, ডা. মাসুদ খান এর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সুষ্ঠু বিচার করা এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমে প্রচার করা অসত্যের জন্য মানহানির বিচার করা।২১ অক্টোবর শেবাচিম হাসপাতালের মেডিসিন ইউনিট-৪ এর রেজিস্ট্রার ডা. মো. মাসুদ খান, শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের সভাপতি সজল পান্ডে এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. তরিকুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে আরও ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে তার ওপর হামলা ও মারধরের অভিযোগ এনে পরিচালক বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন।

 

 

এরপর দিন ২২ অক্টোবর ইন্টার্ন চিকিৎসকরা মেডিক্যালের সামনে ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে কমিশন নেওয়ার অভিযোগে পাল্টা অভিযোগ দায়ের করেন ডা. মাসুদ খানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় হাসপাতালের পরিচালক একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেন। এর কয়েকদিন পর ডা. মাসুদ খান কোতোয়ালি থানায় ওই ইন্টার্ন চিকিৎসকদের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। মামলার খবর পেয়ে ২৯ অক্টোবর দিবাগত রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে তালা দিয়ে বিক্ষোভ করে এবং কর্মবিরতির ডাক দেয়। কিন্তু মেডিক্যাল কলেজ অধ্যক্ষ, হাসপাতাল পরিচালক ও উপ-পরিচালকের হস্তক্ষেপে আড়াই ঘণ্টার আলোচনা শেষে রাত আড়াইটায় কর্মবিরতি থেকে সরে আসে ইন্টার্নরা। সেসময় ইন্টার্নরা কিছু আল্টিমেটামও বেধে দেয় কর্তৃপক্ষকে।

 

 

এরই ধারাবাহিকতায় আজ ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ঘোষণা দিয়ে কর্মবিরতি শুরু করে। এ ব্যাপারে হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেন জানান, দুই পক্ষকে নিয়ে আজ আলোচনায় বসা হয়েছিল। কিন্তু কোনো পক্ষ নিজ নিজ অবস্থান থেকে ছাড় দিতে রাজি না হওয়ায় সমঝোতা হয়নি। তবে সমস্যা সমাধানে চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

আমাদের ফেসবুক পাতা


© All rights reserved © 2018 DailykhoborBarisal24.com

Desing & Developed BY EngineerBD.Net

shares