শনিবার, ১৬ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, সকাল ৬:০৪

বরিশালে থ্রি-হুইলার দূর্ঘটনা রোধে প্রশাসনের নানা উদ্যোগ

dynamic-sidebar

শফিক মুন্সি :: সোমবার বেলা বারোটায় বরিশাল নগরীর ব্যাস্ততম আমতলা মোড়ে দেখা গেলো ট্রাফিক পুলিশের তোড়জোড়। থ্রি- হুইলার ( মাহিন্দ্রা / অটোরিকশা) থামিয়ে চেক করা হচ্ছিলো ড্রাইভিং লাইসেন্স, গাড়ির কাগজ, রোড পারমিট ইত্যাদি। দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশ এবং সার্জেন্টের সঙ্গে কথা বলে জানা গেলো জনগুরুত্বপূর্ণ স্বার্থে বিশেষ এ অভিযান চালাচ্ছেন তারা। সম্প্রতিকালে নগরীর বিভিন্ন স্থানে থ্রি-হুইলার দূর্ঘটনার অস্বাভাবিক হার বৃদ্ধিই এমন কর্মসূচি নেবার মূল কারণ। তবে আশাহত হবার মতো বিষয় হচ্ছে শহরজুড়ে এমন চিত্রর আধিক্য কম। নগরীতে সীমিত পর্যায়ে চলছে ট্রাফিক পুলিশের এমন অভিযান।

আমতলা মোড়ের অভিযানের ব্যাপারে সেখানে দায়িত্বরত সার্জেন্ট ইমরান হোসেনের সঙ্গে কথা হয়েছিল। তিনি জানান , নগরীতে থ্রি-হুইলার দূর্ঘটনার জন্য সাধারণত ওভারটেকিং প্রবণতা, খাঁদা – খন্দে ভরা রাস্তা এবং অদক্ষ চালকরাই দায়ী। গাড়ি এবং চালকের প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র পরীক্ষা করার সাথে সাথে সাবধানে গাড়ি চালানোর পরামর্শও দিচ্ছেন তারা। এছাড়া অদক্ষ গাড়ি চালকদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যাবস্থা নেবার কথাও জানিয়েছেন তিনি।

গত ১৫ এবং ১৯ অক্টোবর পরপর দুটি থ্রি-হুইলার দূর্ঘটনার ঘটনা ঘটে নগরীতে। দুর্ঘটনাস্থলেই মারা যান একাধিক ব্যাক্তি। হাসপাতালে নেবার পরে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় মোট পাঁচে। যারা আহত অবস্থায় আছেন তাদের অবস্থাও সংকটপূর্ণ। হৃদয়বিদারক ভাবে একটি দূর্ঘটনায় মারা যান মা-ছেলে উভয়ই। এসব দূর্ঘটনা শহরজুড়ে স্বল্প দূরত্বের যাত্রীদের মধ্যে এক ভীতিকর অবস্থার সৃষ্টি করেছে। নাগরিক সমাজ থেকে দাবি উঠেছে সিটি কর্পোরেশনের অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে দ্রুতগামী থ্রি-হুইলার বন্ধের।

বারবার থ্রি হুইলার দূর্ঘটনায় শঙ্কিত নগরবাসী জানিয়েছেন সিটিতে বন্ধের দাবি।

 

এ ব্যাপারে গণমাধ্যম ব্যাক্তিত্ব ও চিকিৎসক ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী বলেন, সড়কে মৃত্যু কখনোই কাম্য নয়। দূর্ঘটনার শিকার হয়ে যারা আহত হন তাদেরকেও সারাজীবন বিভিন্ন শারিরীক ও মানসিক কষ্ট বয়ে বেড়াতে হয়। সচেতন নাগরিক হিসেবে আমি যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে নিরাপদ সড়কের দাবি জানাচ্ছি। সড়কে দ্রুতগামী তিন চাকার যান বন্ধ কিংবা নিয়ন্ত্রণ করা গেলে সবার জন্য ভালো হবে বলেই আমি মনে করি।

পরিবহন শ্রমিক নেতা রফিকুল ইসলাম মানিকও সড়কে থ্রি-হুইলার বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। বরিশাল – পটুয়াখালী পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাহী সভাপতি এই নেতা বলেন, মহাসড়কগুলোতে থ্রি-হুইলার বন্ধের জন্য আমরা দীর্ঘদিন আন্দোলন করে আসছি। বেপরোয়া থ্রি-হুইলারের কারণেই সড়কে দূর্ঘটনার হার দিনকে দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

নিরাপদ সড়কের জন্য কাজ করে যাচ্ছে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। নগরীতে পরপর ঘটে যাওয়া থ্রি-হুইলার দূর্ঘটনার ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করে উপ-কমিশনার খায়রুল আলম জানান, সড়কে শৃঙ্খলা আনার জন্য অতিরিক্ত ট্রাফিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অবৈধ ও লাইসেন্স বিহীন থ্রি হুইলার ( মাহিন্দ্রা /অটো) নিয়ন্ত্রণে এখন থেকে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হবে।

নগরীতে থ্রি হুইলার বন্ধের কোনো পরিকল্পনা আছে কিনা এমন প্রশ্নেরও জবাব দিয়েছেন তিনি। মেট্রো আরসিসি মিটিং এ নাগরিক সমাজ থেকে যদি থ্রি হুইলার বন্ধের দাবি আসে তবে সেটা আমলে নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

থ্রি-হুইলার বন্ধের ব্যাপারে কিছু জানা না গেলেও চলাচলে নিয়ন্ত্রণ আরোপের কথা শোনা গেছে বিআরটিএ কার্যালয় থেকে। বরিশাল সার্কেল বিআরটিএর সহকারী পরিচালক মোঃ আতিকুল আলম এ ব্যাপারে নিশ্চয়তা দেন। তিনি জানান,কয়েকদিনের মধ্যেই পুলিশ প্রশাসনের সহায়তায় চালানো হবে মোবাইল কোর্ট। অবৈধ থ্রি – হুইলার এবং লাইসেন্স বিহীন চালকদের আইনের আওতায় এনে সড়কে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত করা যাবে।

আমাদের ফেসবুক পাতা

© All rights reserved © 2018 DailykhoborBarisal24.com

Desing & Developed BY EngineerBD.Net

%d bloggers like this: