শনিবার, ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ভোর ৫:৫৫

ববি হলের ক্যান্টিন থেকে বিশ হাজার টাকার মাছ উধাও

dynamic-sidebar

ববি প্রতিনিধি ::বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শেরে বাংলা হল থেকে ছাত্রদের কেনা বিশ হাজার টাকার ইলিশ মাছ লোপাটের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় ইলিশ মাছ বিক্রির সরকারি নিষেধাজ্ঞা শুরুর আগের দিন মঙ্গলবার রাতে দাম কম পেয়ে প্রায় বিশ হাজার টাকার মাছ কেনে শরিফুল ইসলাম ( রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ), মোক্তার হোসেন ও ইমরান হোসেন (একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন বিভাগ)। মাছগুলো পলিথিন বন্দি করে হলের ক্যান্টিনের ফ্রিজে সংরক্ষণের জন্য রাখা হয়। আজ শুক্রবার সকালে গিয়ে ফ্রিজে কোনো মাছ পাওয়া যায় নি। পরবর্তীতে ছাত্ররা একজোট হয়ে ক্যান্টিন পরিচালনাকারীর কাছে অভিযোগ জানালে হারানো মাছগুলোর বিপরীতে ক্ষতিপূরণ দিতে রাজি হন তিনি।

মাছ হারানোর ব্যাপারে জানতে চাইলে শরিফুল ইসলাম জানান, ” নিষেধাজ্ঞা শুরুর আগের দিন আমরা কয়েকজন মিলে শহরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে কমদামে ইলিশ মাছ কিনেছিলাম। পূজার বন্ধে যার যার নিজের বাড়িতে নিয়ে যাবার উদ্দেশ্যে এতগুলো মাছ কেনা। কিন্তু আজ সকালে গিয়ে দেখি মাছগুলো আর নেই। ”

মাছ কিনে ক্যান্টিনের ফ্রিজে রাখা আরেক শিক্ষার্থী মোক্তার হোসেন জানান, ” পূজার বন্ধে কুমিল্লা নিজ বাড়িতে বরিশালের ইলিশ নিয়ে যাব এই কারণেই টিউশনির টাকায় মাছ কিনেছিলাম। এতদিন ক্যান্টিন বন্ধ ছিল তাই কোনো শিক্ষার্থীর পক্ষে মাছ চুরি করা সম্ভব না। ক্যান্টিনের লোকেরাই মাছগুলো সড়িয়ে রেখেছে। ”

মাছ লোপাটের অভিযোগের ব্যাপারে শেরে বাংলা হলের ক্যান্টিন পরিচালনাকারী ফজলুল হক সাইমুম জানান, ” ক্যান্টিনের ডাইনিং কয়েকদিন বন্ধ ছিল, আমিও বরিশালের বাইরে ছিলাম। আজ এসে এ ঘটনা শুনেছি। দুপুরে কয়েকজন শিক্ষার্থী ছাত্রলীগের সিফাত মামাকে এনে আমার সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনায় বসে। আমি জানিয়ে দিয়েছি যতগুলো মাছ হারিয়ে গেছে ততোগুলো কিনে দেবো। ”

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা মহিউদ্দিন সিফাত জানান, ” জুমার নামায শেষে শেরে বাংলা হলের কয়েকজন শিক্ষার্থী আমাকে ফোন দিয়ে মাছ চুরির ঘটনা জানায়। মাছগুলো সব ছাত্রদের টিউশনির টাকায় কেনা, যার মূল্য প্রায় বিশ হাজার টাকা। আমি যাবার পর ক্যান্টিনের লোকেরা মাছ লোপাটের ঘটনা স্বীকার করে এবং পরিপূর্ণ ক্ষতিপূরণ দিতে রাজি হয়। ”

হল সূত্রে জানা যায়, ক্যান্টিনের ফ্রিজ থেকে শিক্ষার্থীদের দ্রব্যাদি হারানোর এটাই প্রথম ঘটনা নয়। গতমাসের ২৫ তারিখ রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ও শেরে বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র আমানুল্লাহ আমানের তিন কেজি গরুর মাংস ফ্রিজ থেকে হারিয়ে যায়। ক্যান্টিন পরিচালনাকারীর কাছে অভিযোগ দিয়ে কোনো সুরাহা হয় নি সে ঘটনার। দ্রব্যাদি চুরি হবার সাথে সাথে হলের নিরাপত্তা নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেছে একাধিক আবাসিক ছাত্র। ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষার্থী মোঃ শাহজালাল জানান, ” প্রায় সময়ই হলের নিরাপত্তাকর্মীদের খুঁজে পাওয়া যায় না। হলে নেই কোনো সক্রিয় সিসি ক্যামেরা। বুয়েটের আবরারের মতো কোনো ঘটনা এই হলে ঘটলে দোষীদের খুঁজে পাওয়া যাবে না। “

আমাদের ফেসবুক পাতা

© All rights reserved © 2018 DailykhoborBarisal24.com

Desing & Developed BY EngineerBD.Net

%d bloggers like this: